তোমাকে বলছি – ভালোবাসার গল্প

২৬ জানুয়ারী ২০১২, রাত ১১ টার কাছাকাছি
আরিয়েন ফোনে চ্যাট করছিলো। মূলত ফেসবুক ফ্রেন্ডদের সাথে। এমন সময় একটা আইডি তাকে নক করে চ্যাট এ। আরিয়েন জবাব দেয়। বেশ কিছুক্ষন কথা হয়। জানা যায় মেয়েটা আরিয়েন এর লেখা কিছু গল্প পরে আরিয়েন কে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠিয়েছিলো। আরিয়েন মনে মনে অবাক হলো। মেয়েটা তার গল্পের ফ্যান? ভালোই। আরিয়েনের নিজের জন্য একটু গর্ব বোধ হলো। এর পর মেয়েটার সাথে বেশ কিছুক্ষন কথা হলো। এক পর্যায় এ আরিয়েন তাকে জিজ্ঞেস করলো “তুমি আর কতোক্ষন থাকবে?” মেয়েটা বললো “বেশিক্ষন না, একটু পর সব ফোন আসা শুরু হবে”।
-ফোন? কিসের ফোন?
-আজ আমার জন্মদিন, মানে ১২টায় আমার জন্মদিন শুরু হবে।
-ওহ তাই নাকি? অগ্রীম শুভ জন্মদিন।
-থ্যাঙ্ক ইউ।
এরপরই আরিয়েন এমন একটা কাজ করলো যেটা সে কেন করলো সে নিজেই জানে
না।
-তোমার ফোন নম্বর টা দেবে? তোমাকে জন্মদিনের উইশ করবো। প্রমিস কল দেবো
না। শুধু একটা এসএমএস দেবো। প্লিজ?
-আচ্ছা ঠিক আছে। এই নাও ০১*****১**৩।
-ওকে, আমি এস এম এস দেবো। আমার নম্বরটা রাখো। ০১*৫*****৪২।
-ওকে।
আরিয়েন চ্যাট অ্যাপ্লিকেশন বন্ধ করে চোখ বন্ধ করে ভাবতে থাকে। এমন কেন করলো সে? সে নিজেও জানে না। এর আগে সে কখনো এমন করে নি। অন্তত প্রথম পরিচয়ে কোন মেয়ের কাছ থেকে নম্বর চায় নি। যাই হোক, রাত ১২ টায় সব হিসাব হবে।

Continue reading